Sunday, 24 November 2019

How to Improve Your Motivational Skill, Series 50 (Prerana)


প্রেরণা সিরিজ - ৫০ ,  PRERANA SERIES - 50    (Motivational & Inspirational)
লেখক – প্রদীপ কুমার রায়।
                                                  আগেই বলে নিচ্ছি কেননা তোমরা পরে ভুলে যাবে বাকি অন্যান্যদের  সাহায্যের উদ্দেশ্যে শেয়ারটা মনে করে, করে দেবে। শুরু করছি আজকের বিষয় 
                                         নমস্কার বন্ধুরা আমি প্রদীপ  তোমাদের সবাইকে আমার এই Pkrnet Blog   স্বাগতম।আশা করি সবাই তোমরা  ভালোই  আছো  আর  সুস্থ আছো।


                                                          আমার ওয়েবসাইটে যেতে এখানে ক্লিক করুন 

ইচ্ছা করলেই বক্তব্য রাখা যায় না , বক্তব্য রাখার জন্য চাই মনের মধ্যে সাহসের, তাই বাগ্মী হতে সচেষ্ট হতে হবে। বক্তব্য পেশ করার আগে নিজেকে ব্যক্তিত্ববান করে তুলতে হবে। নিজের বক্তব্যের প্রতি বিশ্বাস রাখতে হবে। বক্তব্য হাসি দিয়ে শুরু না করে কোনো গল্প দিয়ে শুরু করলে শ্রোতাদের মনোযোগ আকর্ষণ করা যাবে। পরিষ্কার ও ছোট ছোট বাক্যে কথা বলতে হবে। প্রথমেই আবেগপ্রবণ হবে না। অভ্যাস করার জন্য আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে বক্তব্য রাখতে পারো, যেটা তোমাকে শক্তি যোগাবে। আবেগ ছাড়া ভালো বক্তৃতা হয় না, কিন্তু বক্তৃতা দিতে গিয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে আবেগের জন্য যেন যুক্তি হারিয়ে না যায়। শ্রোতাদের কাছে নিজের বক্তব্যকে যুক্তিপূর্ণ ও বিশ্বাসযোগ্য করে তুলতে হবে। খুব স্বাভাবিক এবং সহজভাবে কথা বলতে হবে। বক্তৃতাও একটি শিল্পকলা । এমন ভাবে বক্তব্য রাখতে হবে যেন শ্রোতারা উদ্বুদ্ধ হয়। বক্তব্য সবসময় আন্তরিক  হতে হবে। যা তুমি বলবে -- সেটা ঠিক করতে হবে। সহজভাবে কথা বলতে হবে। প্রত্যেক ব্যক্তিই ভালো বক্তা হতে পারে। এর জন্য সাহস করে  প্রস্তুতির সাথে ভিড়ের মুখোমুখি হতে হবে, তবেই তোমার ভয় দূর হবে। যদি তোমার কোনো কথা খারাপ লাগে এবং যদি বোঝ যে তোমার কোনো কথাতেই কোনো লাভ হবে না তবে শুধুমাত্র রাগ প্রকাশের জন্য কোনো কথাই বোলো না। এক্ষেত্রে চুপ করে থাকাই  বুদ্ধিমানের লক্ষণ ।

কথা বলার আগে চিন্তা করো, তারপর বলো। ভুল করলে সঙ্গে সঙ্গে স্বীকার করে নাও। তুমি কি বলছো তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণ তুমি কিভাবে বলছো । একটা কথা মনে রাখবে , যে কোনো মূর্খ ব্যক্তিও তর্ক  শুরু করতে পারে কিন্তু ইতিবাচক সমাপ্তির জন্য প্রচুর বুদ্ধির প্রয়োজন হয়। তর্ক , বর্তমান নিয়ে শুরু করো এবং বর্তমান নিয়েই শেষ করো, এর মধ্যে পুরোনো কথা টেনে এন না, অনর্থক কথা বোলো না। কথা শোনার  সময় অন্যমনস্ক হওয়া  উচিত নয়। যার সঙ্গে কথা বলছো তার চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বললে, তিনিও তোমার প্রতি মনোযোগী হতে বাধ্য হবেন।

প্রথমেই তোমাকে তোমার লক্ষ্যটা খুঁজে বার করতে হবে , আর তারপরের কাজটা হবে একনাগাড়ে লেগে থাকা । যখন লক্ষ্য স্থির  হবে , তখন লক্ষ্যে  পৌঁছাতে যত পরিশ্রমই দরকার হোক, যত যুদ্ধই করতে হোক , তা তোমাকে করতে হবেই , কোনো কিছুকে বাধা মনে করে থেমে গেলে চলবে না। নিজেকে কখনোও ছোট ভাববে না,তোমাকে চলতে হবে লক্ষ্য পূরণের জন্য। নিন্দুকদের থোড়াই কেয়ার করবে। চোখ কান বুজে কাজ করতে হবে। তার কারন , নো পেইন নো গেইন। আর একটা কথা মনে রাখতে হবে , শুধু নেওয়া নয় দেওয়াও জানতে হবে এবং চিন্তার জগৎ বড় করতে হবে তাহলেই দেখবে পৃথিবীটা কেমন বদলে গেছে। 
বঙ্কিম রচনাবলী 

"আপনি যদি জীবনের মূল্যবান জিনিস হিসাবে বিবেচনা করতে চান তবে প্রথমটিই হবে  সময় "। -আইস

"সময় কীভাবে কেটে যাচ্ছে সে সম্পর্কে আপনি যখন চিন্তা করেন তখন কীভাবে সময়ের সাথে সময় কাটছে তা আপনি কীভাবে ব্যবহার করতে পারেন তা চিন্তা করুন। আপনি সময় থামাতে পারবেন না তবে আপনি সময়ের সাথে যা যা যাচ্ছেন তা ব্যবহার বা অপব্যবহার করতে পারেন"। -আর্নেস্ট আগিয়েমং ইয়েবোয়া

"আমি সময় পরিচালনা করতে পারি না , তবে মূল্যবান হওয়ার জন্য আমি আমার 24 ঘন্টা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি"।--মোহাম্মদ সেকৌটি

"যদি আপনি সকালে এক ঘন্টা হারান তবে  আপনি সারা দিন এটি সন্ধান করবেন "।-আইরিশ প্রবাদ

জীবনে অনুপ্রেরণার গুরুত্ব যে কতটা, তা আমরা কমবেশি  প্রত্যেকেই জানি| প্রত্যেক মানুষই চায়  তারা যেন সর্বদা অনুপ্রাণিত থাকেন |
এই অনুপ্রেরণা মূলক বিচার গুলিকে বাস্তব জীবনে ঠিক  মত মেনে চললে যে কোনো মানুষের জীবন অনয়াসেই বদলে যেতে পারে 
মোটিভেশনাল ভিডিও দেখতে উপরের ডানদিকের কর্নারে YouTube লিঙ্ক অথবা এখানে Pkrnet এই লিঙ্কটির উপর ক্লিক করুন।
এতক্ষণ সময় দিয়ে পড়ার জন্যে তোমাকে  অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই  পিকেআর নেট  ব্লগ - এর পক্ষ থেকে | 
পোস্টটা ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই একটু Comment করে তোমার মতামত আমায় জানিও |তোমার মূল্যবান মতামত আমাকে বাড়তি অনুপ্রেরণা যোগাতে ভীষনভাবে সাহায্য করে।


No comments:

Post a comment