Tuesday, 7 April 2020

আপনার অনুপ্রেরণামূলক দক্ষতা কীভাবে উন্নত করবেন, সিরিজ-১০৬(প্রেরণা)[How to Improve Your Motivational Skill, Series-106 (Prerana)]


প্রেরণা সিরিজ - ১০৬,PRERANA SERIES-106 (Motivational & Inspirational)
লেখক – প্ৰদীপ কুমার রায়।

আগেই বলে নিচ্ছি কেননা তোমরা পরে ভুলে যাবে বাকি অন্যান্যদের  সাহায্যের উদ্দেশ্যে শেয়ারটা মনে করে,করে দেবে এবং ডানদিকের উপরের কোনে অনুসরণ বাটন অবশ্যই ক্লিক করে অনুসরণ করবে।শুরু করছি আজকের বিষয়   নমস্কার বন্ধুরা আমি প্রদীপ  তোমাদের সবাইকে আমার এই Pkrnet Blog  স্বাগতম।  আশা করি সবাই তোমরা  ভালোই  আছো  আর  সুস্থ আছো।



যদি কখনো আঘাত পান মনে ঠিক সেই মহুর্তে কি আকার ধারন করে, একবার নিজেই উপলব্ধি করুন, কোন ব্যাক্তির দ্বারা যদি হৃদয়ে পীড়া হয়, তখন ব্যাক্তির প্রতি ক্রোধ হয় এবং প্রতিশোধের অগ্নি মনে প্রস্ফুটিত হয়।বাস্তবে এমনটাই নয় কিকিন্তু আমরা যদি সেইক্ষণে মনের ভেতর অগ্নি কুন্ডের জন্ম না দিয়ে মন কে শান্ত করে রাখি সেটাই ভাল উপায় নয় কিকর্মের উপর ভিত্তি করে ফল পাব, একথা কি আমরা সবাই বিশ্বাস করি ?যদি কোনো ব্যাক্তি কোনো কারনে আপনার ক্রোধের কারণ হয় বা তার কারনে অগ্নি শিখা আপনার হৃদয়ে স্থাপন হয়, ঠিক সেই মহুর্তে নিজের মন কে শান্ত রাখার প্রয়াস অবশ্যই করবেন। ধৈর্য্য একটি মহৎগুন যা সবার মাঝে থাকেনা, যদি কেউ আপনাকে কটু কথা বলে গালি দেয় তাহলে ব্যাক্তির মুখ নষ্ট হবে, এতে পাপ বৃদ্ধি হবে ওর, আর আপনি ধৈর্যের সাথে পরিস্থিতি সামলানোর প্রয়াস যদি করতে পারেন এতে ভাল ফল আপনার প্রাপ্তি হবে। জগতে মানুষ মানুষের বিচার কি প্রকারে করবে, বিচার তো একমাত্র নিয়তিই  করে থাকেন, আর অন্যায় করলে এর শাস্তি ভোগ করতেই  হবে, কেবল আপনি বুঝতে পারবেন না যে কোন কাজের জন্য আপনার এই শাস্তি।

জীবনে যতই  ভালো উপদেশ শোনেন   না কেন , যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি  সেই সবের থেকে পাওয়া জ্ঞানকে নিজের জীবনে ব্যবহার না করছেন ,ততক্ষন অবধি সেই সবের কোনো মূল্যই নেইযে জ্ঞান আজ আপনাকে খারাপ  কাজ থেকে বিরত রাখতে পারে না ,সে জ্ঞান আপনাকে  শেষ চারে নিয়তির শাস্তি থেকেও বাঁচাতে পারবে না । জীবনে অনুপ্রেরণার গুরুত্ব যে কতটা, তা আমরা কমবেশি  প্রত্যেকেই জানি। প্রত্যেক মানুষই চায়  তারা যেন সর্বদা অনুপ্রাণিত থাকেন। এই অনুপ্রেরণা মূলক বিচার গুলিকে বাস্তব জীবনে ঠিক  মত মেনে চললে যে কোনো মানুষের জীবন অনয়াসেই বদলে যেতে পারে । বলা যায় আদর্শ যেন একটা মডেলের ন্যায় | তা দেখেই জীবন গড়ার চেষ্টা চলছে  ঐতিহাসিক ক্রম অনুসররণ করলে আমরা প্রথমেই পাই আদর্শ - আদর্শবাদ। আইডিয়ালিজিম - এটি প্রাচীনতম বটে সর্বকালীনও বটে কোনদিন এর পরিবর্তন সম্ভব নয় বেদের শিক্ষাই হলো নিজেকে জানার আদর্শবাদ। 


জীব এই জগতে বিভিন্ন প্রকারের জড় কামনা বাসনা নিয়ে কর্ম করে থাকে। কিন্তু সে তার প্রতিটি কৃতকর্মের ফলভোগ করতে বাধ্য থাকে। সেই কর্ম অনুসারে তাকে বারবার জড় শরীর ধারণ করতে হয়। নূতন শরীরে সে নূতন কর্ম করে ঐসব কর্মের ফল ভোগের জন্য আবার তাকে জন্ম নিতে হয়। রকম চলতেই থাকে। এইরূপ বদ্ধ অবস্থাকে বলা হয় কর্ম বন্ধন। যা অল্প সময়ের মধ্যে প্রাপ্ত হওয়া যায় কিন্তু ক্ষণস্থায়ী এবং অন্তিমে দুঃখজনক তাকে বলা হয় প্রেয়। যা লাভ করা পরিশ্রম সাপেক্ষ, কিন্তু চিরস্থায়ী এবং সুখদায়ক, তাকে বলা হয় শ্রেয়। আমাদের জীবনে শ্রেয় লাভ করাই শ্রেষ্ঠ বা উচিত। নিজের ইন্দ্রিয়ের বিধানের তৃপ্তি জন্য যে বাসনা তাকে বলে কাম। শ্রীকৃষ্ণের প্রীতি বিধানের জন্য যে বাসনা তাকে বলে প্রেম। জীবের অন্তরে রয়েছে শুদ্ধ ভগবৎ প্রেম। জীব যখন জড় জগতে পতিত হয়, তখন তাঁর শুদ্ধ ভগবৎ প্রেম বিকৃত কামে পরিণত হয়।

''কেকুলে রসায়নবিৎ ছিলেন। ইনি রসায়নশাস্ত্রের পরমাণু-সম্বন্ধীয় চিন্তায় শ্রান্ত-ক্লান্ত হইয়া একদিন সন্ধ্যায় গৃহে ফিরিতেছেন, পথিমধ্যে সহসা জ্যোতিষ্মান্ পরমাণুসমূহের নর্ত্তন তাঁহার দৃষ্টিপথে উদ্ভাসিত হইয়া উঠিল ইহাকেই দর্শন বলে। যোগীর দর্শনও এইরূপ বৈজ্ঞানিক দ্রষ্টা কেকুলের পরমাণুর নৃত্য-দর্শন আধুনিক বিজ্ঞান-জগতে এক চিরস্মরণীয় ঘটনা ; কারণ , ইহা হইতেই তিনি Benzene-এর গঠন-সম্বন্ধীয় মতবাদ প্রকাশ করলেন " --(তথ্য-সূত্র:- 'Encyclopedia Britannica', PP. 717-18, Vol.15, 1911 Ed.)


মোটিভেশনাল ভিডিও দেখতে উপরের ডানদিকের কর্নারে YouTube লিঙ্ক অথবা এখানে Pkrnet এই লিঙ্কটির উপর ক্লিক করুন।
এতক্ষণ সময় দিয়ে পড়ার জন্যে তোমাকে  অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই  পিকেআর নেট  ব্লগ - এর পক্ষ থেকে | 
পোস্টটা ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই একটু Comment করে তোমার মতামত আমায় জানিও |তোমার মূল্যবান মতামত আমাকে বাড়তি অনুপ্রেরণা যোগাতে ভীষনভাবে সাহায্য করে।

No comments:

Post a comment