Thursday, 17 September 2020

আপনার অনুপ্রেরণামূলক দক্ষতা কীভাবে উন্নত করবেন, সিরিজ-১৪৪(অনুপ্রেরণা)[How to Improve Your Motivational Skill, Series-144 (AnuPrerana)]

 


অনুপ্রেরণা সিরিজ - ১৪৪,ANUPRERANA SERIES-144 (Motivational & Inspirational)

লেখক – প্ৰদীপ কুমার রায়।

 আগেই বলে নিচ্ছি কেননা তোমরা পরে ভুলে যাবে বাকি অন্যান্যদের  সাহায্যের উদ্দেশ্যে শেয়ারটা মনে করে,করে দেবে এবং ডানদিকের উপরের কোনে অনুসরণ বাটন অবশ্যই ক্লিক করে অনুসরণ করবে।শুরু করছি আজকের বিষয় ।নমস্কার বন্ধুরা আমি প্রদীপ  তোমাদের সবাইকে আমার এই Pkrnet Blog  স্বাগতম।আশা করি সবাই তোমরা  ভালোই  আছো  আর  সুস্থ আছো।



আমাদের জীবনে চলার পথে সবারই কখনো না কখনো দুবিধা আসে, আর প্রত্যেক দুবিধার থেকে উৎপন্ন হয় কিছু বিকল্প। এই সময় সব থেকে অধিক মহত্বপূর্ণ হয়ে যায় আমাদের চয়ন। আমরা যে প্রকারের ভোজন চয়ন করি তাতে আমাদের শরীর প্রভাবিত হয়, আমরা যে প্রকারের বস্ত্র চয়ন করি তাতে আমাদের ব্যক্তিত্ব প্রদর্শিত হয়, আমরা যে প্রকারের বাহনের চয়ন করি তাতে আমাদের যাত্রার সুগমতা নির্ভর করে। কিন্তু আমাদের চয়নের মাহাত্ম্য কি এতটুকুই? আমাদের চয়ন কি তখন মাহাত্ম্যপূর্ণ হয়ে যায় না যখন পরিস্থিতি কঠিন হয়ে যায়? বলার আগে শব্দের চয়ন করে নেয়া বরদান সিদ্ধ হতে পারে আবার অভিশাপও, বিবাদ উপস্থিত হলে বিবাদ করা উচিত না কি শান্তির পথ অবলম্বন করা উচিত এই চয়ন ভবিষ্যৎ বদলাতে পারে। নিয়তি আমাদের দ্বন্দে জড়িত করে, ভাগ্য আমাদের বিকল্প দেয় কিন্তু ভবিষ্যৎ চয়নের উপর নির্ভর করে। এখন একটা প্রশ্নের উদয় হয় যে চয়ন কিভাবে করা যায়? কারন মানুষের মন তো সর্বদাই চঞ্চল থাকে। কিন্তু এই প্রশ্নের উত্তরও তো আমাদের মনই দেয়। যে চয়ন উৎসাহ দেয় সন্তোষ নয়, যা বিজয়ের আনন্দ দেয় মনের শান্তি নয়, সেটা কি উচিত? হ্যাঁ অথবা না এই চয়ন ভবিষ্যৎ বদলাতে পারে।


কর্ম আমাদের জীবনের এক অভিন্ন ভাগ। কর্ম সবাই করে, কিন্তু কর্ম করার পূর্বে আমরা কি একবারও এটা বিবেচনা করি যে প্রত্যেক ক্রিয়ারই একটি সমান প্রতিক্রিয়া আছে, আর একটি কর্ম একটি ফলের জন্ম অবশ্যই দেবে। একটা দোলনার কথা কল্পনা করুন, সেটাকে যদি একবার দোলানো যায় তবে সেটা নিজের যায়গায় অবশ্যই ফিরে আসবে। হঠাৎই একটা আম গাছের মনে হল, সেটার আম খুব মিষ্টি ছিল। কিন্তু বৃক্ষ রোপণকারী ব্যাক্তি কদাচিৎ সেই বৃক্ষের ফল খাবার আশা করেন নি। যদি করেও থাকেন তাহলে এটা আবশ্যক নয় যে তিনি সেই ফল খেয়েই থাকবেন। কিন্তু আজ সেই বৃক্ষের ফল সকলেই খায়। অনেক বছর পূর্বে সেই স্থানে কেউ আম্রফলের বৃক্ষ রোপণ করে ছিল কিন্তু সে যদি বাবলা বা এরকম কণ্টকপূর্ণ বৃক্ষ রোপণ করত তবে তা হয়তো মানুষের শরীরে বিঁধত। কখনো আমাদের পূর্বপুরুষদের কৃত কার্যের সুফল আমরা লাভ করি, আবার কখনোবা আমাদের কৃত কোন দুষ্কর্মের প্রতিফল আমাদের আগামী প্রজন্ম ভোগ করে। কর্ম করার সময় ফলের চিন্তা না করা- এটা প্রত্যেক ব্যক্তি বিশেষের অধিকার, কিন্তু সে ফল বপন করছে না কি কাঁটা, সে ব্যপারে বিচার করা তার কর্তব্য। কারণ সুমিষ্ট ফল পাবেন না কি কাঁটার আঘাত গায়ে সহ্য করবেন সে তো আপনার বৃক্ষের রোপণের উপরই নির্ভর করে, নিয়তি কেবল এটা নির্ধারণ করে যে ফল আপনি ভোগ করবেন নাকি আপনার ভবিষ্যৎ।


শুধু দাঁড়িয়ে নদী দেখতে থাকলে আপনি কোনদিনও সেই নদী পার করতে পারবেন না, পার করতে হলে আপনাকে অবশ্যই সঠিক পদক্ষেপ নিতে হবে। যত কঠিন সংঘর্ষ হবে, বিজয়ের আনন্দ ততই মধুর হবে। যদি আপনি চান কোনো কাজ ভালো ভাবে হোক, তাহলে সেটি নিজে করুন। এটা কোনো বেপারই না যে আপনি কত ভুল করছেন বা আপনি কত ধীর গতিতে প্রগতি করছেন, আপনি এখনো ওইসব মানুষগুলির থেকে এগিয়ে যারা কোনদিন চেষ্টাও করেনা কিছু করার।

জীবনে অনুপ্রেরণার গুরুত্ব যে কতটা, তা আমরা কমবেশি  প্রত্যেকেই জানি। প্রত্যেক মানুষই চায়  তারা যেন সর্বদা অনুপ্রাণিত থাকেন। এই অনুপ্রেরণা মূলক বিচার গুলিকে বাস্তব জীবনে ঠিক  মত মেনে চললে যে কোনো মানুষের জীবন অনয়াসেই বদলে যেতে পারে

 মোটিভেশনাল ভিডিও দেখতে উপরের ডানদিকের কর্নারে YouTube লিঙ্ক অথবা এখানে Pkrnet এই লিঙ্কটির উপর ক্লিক করুন। এতক্ষণ সময় দিয়ে পড়ার জন্যে তোমাকে  অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই  পিকেআর নেট  ব্লগ - এর পক্ষ থেকেপোস্টটা ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই একটু Comment করে তোমার মতামত আমায় জানিও |তোমার মূল্যবান মতামত আমাকে বাড়তি অনুপ্রেরণা যোগাতে ভীষনভাবে সাহায্য করে।


No comments:

Post a comment